Thursday, 27 July 2017

রাজশাহী গোদাগাড়ীর বঙ্গবন্ধু পুরস্কার প্রাপ্ত সফল কৃষক মনিরুজ্জামান মনির

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম, ডেস্ক:মোঃ মনিরুজ্জামান মনির, রাজশাহী নগরীর রাজপাড়া থানার মহিষবাথান এলাকায় পিতা মাতার সাথে বসবাস করেন। মনিরুজ্জামান মনির  বিএ পাশ করে চাকুরীর জন্য বিভিন্ন অফিসে ঘুরতে থাকে কিন্তু চাকুরীর কোন ব্যবস্থা না হওয়ায় নিরাস হয়ে পড়েন। এমন সময় মনিরুজ্জামান মনি এর গ্রামের এলাকার উপসহকারী কৃষি অফিসার ডিঃ কৃষিবিদ অতনু সরকারের সাথে দেখা এবং দুজনের মধ্যে কথা বিনিময় হয়। মনিরুজ্জামান মনির তার বেকার জীবনের কথা অতনু সরকারের নিকট বলে এবং সমাধানের কোন ব্যবন্থা আছে কিনা জানতে চান।অতনু সরকার মনিরুজ্জামান মনির এর জমিজমা ও আর্থিক অবস্থা জেনে তাঁকে উন্নত প্রযুক্তিতে কিছু কৃষি কাজ করার পরামর্শ দেন।

মেলন খ্যাত বদু মিয়া

এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম:রক,মেলন,মুনিয়া, সুইট ব্ল্যাক জাতের তরমুজ সফল ভাবে চাষ করে দেশ জোড়া খ্যাতি রয়েছে আব্দুল বাছিরের (বদু মিয়া) । বছরের যে কোন সময় এ তরমুজ গুলি আধুনিক পদ্ধতিতে চাষ করে কৃষকরা আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারেন এমনটাই জানালেন এগ্রিলাইফ২৪ ডটকম প্রতিবেদকের কাছে।

মাস্টার্স পড়ার পাশাপাশি লেয়ার মুরগীর খামার করে স্বাবলম্বী হওযার স্বপ্ন দেখছেন টাঙ্গাইলের জাহিদুল ইসলাম

কে এস রহমান শফি, টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইল সা’দত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে সমাজ কর্ম মাস্টার্স শেষ পর্বে পড়াশুনার পাশাপাশি লেয়ার মুরগীর খামার স্থাপন করে স্বাবলম্বী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন মোঃ জাহিদুল ইসলাম। একদিকে লেখাপড়া অন্যদিকে খামারের দেখাশুনা। সবমিলিয়ে তিনি আশাবাদী আগামীতে সফল লেয়ার মুরগীর খামারী হিসেবে স্বীকৃতি পাবেন।

ফুল চাষে ভাগ্য বদল আব্দুস সালামের

কাজী কামাল হোসেন,নওগাঁ:নিজের পাঁচ কাঠা জমি থেকে ফুলের ব্যবসা শুরু। দিন বদলের পালায় এখন লীজকৃত ১০ বিঘা জমিতে বিভিন্ন ধরনের ফুল চাষ করছেন। সেখানে প্রতিদিন ৩/৪ জন শ্রমিক কাজ করছেন। সংসারে এসেছে স্বচ্ছলতা। ফুল চাষ করে ভাগ্য বদলেছে নওগাঁ সদর উপজেলার লখাইজানি গ্রামের আব্দুস সালাম।

পোল্ট্রি মুরগির খামার করে সফলতা পেয়েছেন টাঙ্গাইলের বজলুর রশীদ

কে এস রহমান শফি. টাঙ্গাইল: পোল্ট্রি মুরগির খামার করে সফলতা পেয়েছেন বজলুর রশীদ। লেখাপড়া শেষ না করতেই শুরু করেন ব্যবসা। পোল্ট্রি মুরগির ওপর তিন মাসের প্রশিক্ষণ নিয়ে একটি সেডে মাত্র ৩শ’ বাচ্চা নিয়ে ২০০০ সালে ব্যবসা শুরু করেছিলেন। আজ সেখানে তার খামারে তিন হাজার বাচ্চা ধারণ ক্ষমতা পেয়েছে। ১৬ বছরে পরিবারে এসেছে স্বচ্ছলতা। বাবা, স্ত্রী ও একমাত্র পুত্র সন্তান নিয়ে চলছে তাদের সংসার এই খামারকে ঘিরেই।